আবীর আহাদ মুক্তিযোদ্ধা লেখক গবেষক
৭০ বছরে পদর্পণ করলো আওয়ামী লীগ

গণতন্ত্রের মানসপুত্র হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী, মজলুম জননেতা মাওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানী, বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, মুক্তিযুদ্ধের মুজিবনগর সরকারের প্রধানমন্ত্রী বঙ্গতাজ তাজউদ্দিন আহমেদ ও বঙ্গবন্ধু-কন্যা প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার ধারাবাহিক নেতৃত্বের বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ আজ একটানা সুদীর্ঘ পনেরো বছর ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত । আওয়ামী লীগের সাথে এদেশের স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও অঙ্গীকার, অর্থনৈতিক-সাংস্কৃতিক মুক্তি, বাঙালির জাত্যাভিমান, জাতীয় মর্যাদা ও গর্ব তথা গণমানুষের আশা-আকাঙ্খা জড়িত ।

মহান মুক্তিযুদ্ধের নেতৃত্বদানকারী আওয়ামী লীগ  এদেশের বৃহত্তম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণ, বিশেষ করে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাণপ্রিয় রাজনৈতিক দল । সেই আওয়ামী লীগ, যে দলটির নেত্রী-নেতা-কর্মীরা দল ও দেশ পরিচালনায় দীর্ঘ সংগ্রাম ও অভিজ্ঞতায় পরিপূর্ণ । কিন্তু আজ বাস্তব দৃষ্টিতে বিচার-বিশ্লেষণ করলে, অতি পরিতাপের সাথে বলতে হয়, এতো অভিজ্ঞতা অর্জন করার পরেও দল ও দেশ পরিচালনা করতে তারা, বলা চলে, ব্যর্থতার পরিচয় দিয়ে আসছেন ! নেতৃত্ব মনে হয় বুঝতেই পারছেন না, দল ও রাষ্ট্র পরিচালনায় কাকে কাকে কোথায় কোথায় বসাতে হয় ! আজ তাদেরকে আত্মসমালোচনা ও আত্মশুদ্ধি করতে হবে যে, তাদের দলে ও সরকারে যাদেরকে গুরুত্বপূর্ণ পদ-পদবী দেয়া হয়েছে, তারা কারা, কী তাদের পরিচয়, কী তাদের ব্যাকগ্রাউন্ড, তারা কে কোথায় বসে কী করছে ? দল ও সরকার এমন কী দেউলিয়ায় হাবুডুবু খাচ্ছে যে, এতো লক্ষ-কোটি নিবেদিতপ্রাণ ত্যাগী সৎ মেধাবী ও জাতীয় ক্ষেত্রে নানান অবদান রাখা আদর্শবান নেতা-কর্মী ও শুভানুধ্যায়ী থাকতে দলে ও সরকারে আওয়ামী আদর্শ ও চরিত্রবিরোধী লোকদের জামাই আদরে স্থান দিতে হবে ? দেশের মধ্যে আজকে যে সর্বগ্রাসী দুর্নীতি ও লুটপাটের হোলিখেলা চলছে, তার সঙ্গে যারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত—- তারা কারা ? হাতেগণা দু’চারজন দলীয় পুরনো ব্যক্তি ছাড়া, বাইরে থেকে, অর্থাত্ মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধীরা দলে ও সরকারে স্থান করে-নেয়া লোকজনই এসব দুর্নীতি ও লুটপাটের সাথে জড়িত । এতোদিনেও কি তারা বুঝতে পারছেন না যে, তারা আওয়ামী লীগের জন্য আশীর্বাদ, না অভিশাপ ? এসব দুর্নীতিবাজ ও লুটেরাগোষ্ঠী কি দল ও রাষ্ট্রের চেয়েও অধিক শক্তিশালী যে, তাদেরকে দল ও সরকারের সাথে জড়িয়ে রাখতেই হবে ?

এসব বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বকে এখনি আত্মসমালোচনা ও আত্মশুদ্ধি করতে হবে । অন্যথায় আজ যে চাকচিক্য ও ক্ষমতার অন্ধত্বে তারা আবিষ্ট হয়ে আছেন, কখন যে তা বালির বাঁধের মতো ধসে পড়বে, তা তারা ঘূর্ণাক্ষরেও টের পাবেন না ।

জয়বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু ।

আবীর আহাদ
মুক্তিযোদ্ধা লেখক গবেষক

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here