করোনা উপসর্গ মুক্তিযোদ্ধা ও শিশুসহ আরও ২২ মৃত্যু

Share It
  • 23
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    23
    Shares

জ্বর, সর্দি-কাশি ও শ্বাসকষ্টে সারাদেশে আরও ২২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা গেছেন ৬ জন। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে মৃত্যু হয়েছে শিশুসহ দু’জনের। রাজশাহীতে মারা গেছেন তিনজন। সাতক্ষীরায় এক স্কুলছাত্রসহ চারজনের মৃত্যু হয়েছে। বরিশালে মারা গেছেন ঝালকাঠির এক মুক্তিযোদ্ধা। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে কক্সবাজারের এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ফরিদপুরে মারা গেছেন এক ব্যবসায়ী। এ ছাড়া পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় দু’জন, ঝালকাঠির নলছিটিতে একজন এবং চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণে একজন মারা গেছেন। এ নিয়ে করোনা উপসর্গে সারাদেশে ৮৫৬ জনের মৃত্যু হলো।

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গত রোববার থেকে গতকাল সোমবার পর্যন্ত মারা যান এক নারীসহ ছয়জন। এর মধ্যে করোনা ইউনিটের আইসিইউতে পাঁচজন এবং অপরজন আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। তারা হলেন- নগরীর ছোটরা এলাকার পারভীন আক্তার, সদর দক্ষিণ উপজেলার মোস্তাক আহমেদ, মো. আবুল হোসাইন ও মোসলেম এবং চাঁদপুর জেলার সদর উপজেলার আলমগীর হোসেন ও হাজীগঞ্জ উপজেলার নজরুল ইসলাম। হাসপাতালের সহকারী সার্জন ডা. মুক্তা রানী ভূঁইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা সাসপেক্টেড আইসোলেশন ওয়ার্ডে গতকাল ভোরে মুস্তাকিন নামে পাঁচ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়। ওই ওয়ার্ডের ফোকাল পারসন ডা. মো. মিজানুর রহমান জানান, মুস্তাকিনকে রোববার বিকেলে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার উলা গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে। এ ছাড়া গতকাল সন্ধ্যায় মারা যান নগরীর খানজাহান আলী রোডের বাসিন্দা মাকসুদ আলম (৫৫)।
বরিশাল শেরেবাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে গতকাল দুপুরে ঝালকাঠির সাবেক পৌর কাউন্সিলর ও মুক্তিযোদ্ধা তোফাজ্জেল হোসেন (৭৪) মারা যান। তার বাড়ি ঝালকাঠি শহরের পশ্চিম চাঁদকাঠি এলাকায়।তার জ্বর, শ্বাসকষ্ট ও বুকের ব্যথা ছিল।
রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোববার রাতে মারা যান তিনজন। জ্বর ও সর্দি-কাশিতে আক্রান্ত হয়ে আইসিইউতে মারা যান আহমেদ কুরিয়ার সার্ভিসের মালিক নবুয়াত আলী (৬১)। তার বাড়ি রাজশাহীর গোদাগাড়ী পৌরসভার ভগবন্তুপুর এলাকায়। মারা যাওয়া অন্য দু’জন হলেন- রাজশাহী নগরের শাহ মখদুম থানার পবা নতুনপাড়া এলাকার বাসিন্দা মতিউর রহমান (৫৬) ও বাঘা উপজেলার মনিগ্রাম এলাকার বাসিন্দা মো. শান্ত।
সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ১৫ ঘণ্টার ব্যবধানে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল দুপুরে কালীগঞ্জ উপজেলার তারালি ইউনিয়ন থেকে আসা এক স্কুলছাত্র (১৩) মারা যায়। তার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট ছিল। এর আগে মারা যান ঢাকায় বেসরকারি সংস্থায় কর্মরত এক ব্যক্তি (৪২)। সদর উপজেলার বাঁশদাহ ইউনিয়নের এক বৃদ্ধ (৭২) সকালে মারা যান। রোববার রাতে মারা যান কলারোয়া উপজেলার কেরাগাছি ইউনিয়নের একজন (৬২)।
পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় মারা গেছেন দু’জন। উপজেলার পশ্চিম সেনের টিকিকাটা গ্রামের মইনদ্দিন চৌধুরী শাজাহানকে (৫০) চিকিৎসার জন্য খুলনা নেওয়ার পথে গতকাল ভোরে তার মৃত্যু হয়। জানখালী গ্রামের সিদ্দিকুর রহমান খোকনকে (৪০) চিকিৎসার জন্য বরিশালে নেওয়ার পথে তিনি মারা যান। তিনি পাথরঘাটা ফায়ার সার্ভিসে অগ্নিনির্বাপণ কর্মী হিসেবে কর্মরত ছিলেন।
গতকাল দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মারা যান হাজেরা বেগম (৫৫)। তার বাড়ি কক্সবাজারের ঈদগাঁ এলাকায়। করোনা উপসর্গ ছাড়াও তিনি নানা রোগে ভুগছিলেন।

গতকাল সকালে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পরপরই মারা যান জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভোগা এক ব্যবসায়ী (৬৫)। তার বাড়ি ফরিদপুর পৌরসভার একটি মহল্লায়।
ঝালকাঠির নলছিটি পৌরসভার সূর্যপাশা এলাকায় নিজ বাড়িতে রোববার সন্ধ্যায় মারা গেছেন আলমগীর হোসেন (৫৮) নামে এক রাজমিস্ত্রি। তিনি জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন।

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার নারায়ণপুর ইউনিয়নে নিজ বাড়িতে রোববার রাতে মারা যান উপজেলা প্রশাসনের হিসাবরক্ষণ কার্যালয়ের এক কর্মচারী (৩৬)।

Share It
  • 23
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    23
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here