‘কাঠ ঘর’ : মকবুল আলম

Share It
  • 77
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    77
    Shares

বলুনতো যাব কোথায়!
যেথায় শিশির ভেজা কাশবন,
রক্তিম আভায় সূর্য কিরণ,
বিন্দু বিন্দু শিশির কণা-
করে মুক্তোদানার মত ঝিকমিক।
ডাকে আমায় ডাকে তোমায়,
যদি শুনতে পাও-
সেই মোহময়ী ধ্বনি এগিয়ে চল।

ঝেড়ে ফেলে-
কালনিশির বিদঘুটে অন্ধকার।
জাগতিক মোহ-
লোভ লালসা ঘৃণা হিংসা,
চোখের কোনে ভেসে উঠা-
অস্পৃশ্যতা।

সবকিছু ছুড়ে ফেলে-
চলনা একটু সামনে এগোই,
ঐ তো ডাকছে আামায়-
মাধুরি মিশানো ইশারায়।
হৃদয়ের পর্দা খোলে-
দুনয়ন বোঝে দেখ কল্পনায়।
ভোরের হিমশীতল পরশে,
হয়তোবা পেয়ে যাব-
থাকবেনা ভয় পিছন ফেরার।

বলতো কোথায় সততা!
মানুষ যেথায়-
পেশ করে আর্জি খানি।
কখনওবা সবকিছু হারিয়ে,
কিংবা অর্থ সম্পদ সঙ্গী সঙ্গিনী।
কখনওবা অসভ্য বর্বরের-
রোষানলে পরে,
ঘটে যায় কারও অঙ্গহানী।

ন্যায় চাইতে গিয়ে-
প্রতারিত হতে হয় বারবার।
প্রতিবাদ প্রতিহত হয়,
টেবিল কিংবা চেয়ারের নীচে।
এক টুকরো কাগজ-
যা লিখতে মাত্র দুই-পাঁচ মিনিট।
আহারে উঠতে কাঠ ঘরে,
আবার নামতে দুবেলায়ই-
আপনাকে আমাকে
উপরি পাওনাটা চুকাতে হয়।

সভ্যতা কোথাও-
এভাবে কি বিক্রিত হয়?
কখন আমরা হব চেতন,
পূর্ণ্যতায় গড়ে মন।
নিজের পাওনাটাকেই পুঁজি করে,
কাটাবো জীবন।
বিচারটাকে না করি পণ্য,
আমরা না হই কখনও শূন্য।


Share It
  • 77
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    77
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here