গাজীপুরে করোনায় মুক্তিযোদ্ধা ও উপসর্গে শিক্ষকের মৃত্যু

Share It
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    19
    Shares

গাজীপুরে করোনায় বন বিভাগের সাবেক সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) মুক্তিযোদ্ধা মো. মতিউর রহমানের মৃত্যু হয়েছে। তার বাড়ি গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের আদাবৈ এলাকায়। এদিকে করোনা উপসর্গ নিয়ে আমজাদ হোসেন নাহীন নামে এক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার তাদের মৃত্যু হয়।

নিহত মুক্তিযোদ্ধার স্বজনরা জানায়, কিছুদিন ধরে জ্বর, গলাব্যথা ও কাশিসহ করোনা উপসর্গ নিয়ে ভুগছিলেন মতিউর রহমান, তার স্ত্রী এবং মেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রী। গত ২০ জুন কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নমুনা পরীক্ষার জন্য দেয় তারা।

২২ জুনের ফলাফলে তাদের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। এরপর থেকে তারা হোম আইসোলেশনে ছিলেন। বিষয়টি অন্যদের কাছে প্রকাশ না করে গোপন রাখেন। একপর্যায়ে মতিউর রহমানের অবস্থার অবনতি হয় এবং শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়। এরপর বুধবার ভোরে তিনি মারা যায়।

প্রায় দু’বছর আগে তিনি বনবিভাগের ঢাকার বোটানিক্যাল গার্ডেনের এসিএফ (সহকারী বন সংরক্ষক) পদের চাকরি থেকে অবসর গ্রহণ করেন।

গাজীপুর সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল জাকী জানান, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের একটি প্রশিক্ষিত টিমের সহযোগিতায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিকালে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার দাফনের ব্যবস্থা করা হয়।

এদিকে গাজীপুরের শ্রীপুর পৌরসভার আলহাজ ধনাই বেপারী মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন নাহীন করোনার উপসর্গ নিয়ে বুধবার চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয়েছে।

তার ভাই অ্যাডভোকেট বাহাদুর জানান, প্রধান শিক্ষক আমজাদ হোসেন কয়েকদিন ধরে জ্বর ও কাশিসহ করোনা উপসর্গে ভুগছিলেন। অবস্থার অবনতি হলে পাঁচদিন আগে তাকে ঢাকার ইস্টওয়েস্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। করোনা সংক্রমণ নিাশ্চিত হতে সেখানে নমুনা দেয়া হয়। ফলাফল পাওয়ার আগেই বুধবার রেলা আড়াইটার দিকে তিনি মারা যায়।


Share It
  • 19
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    19
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here