তৃষ্ণা : মকবুল আলম

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

তৃষ্ণা তৃষ্ণা তৃষ্ণায় ভরে গেছে হৃদয়,
শূন্যতায় সৃষ্ট মরুয় মরীচিকা কথা কয়।
অন্ধ নিশুতির অন্তরালে-
কে যেন ডাকে?
হৃদয় কোণ থেকে হুঙ্কার দিয়ে বলে উঠে,
আছ কোন বাঁকে?

রয়েছি পথ চেয়ে আলোর প্রত্যাশায়,
প্রান্তে পিছনে চেয়ে ঘিরে আলেয়ায়।
চেয়েছি পাব বলে,
পেয়েছি শূন্য হলে।
দেব বলেই ছুটে চলেছি যখন ভেসে,
ডুবে গেছি জলে।

পাওয়ার যে সাধ ছিল বুকে,
হারাবার ক্লান্তিতে ঝরে গেছে ধুঁকে ধুঁকে।
তবুও চেয়েছি বারবার,
যৌবনের নিমিত্তে।
বেঁচে থাকার চাহিদা পূরণের জন্য,
আপনার সত্ত্বে।

হেরে যাবার ভয়ে ছুটে চলেছি ধেয়ে,
মনের আশা ফিরবো বিজয় উল্লাস নিয়ে।
কতদূর গমনে-
দেহ আর মনে,
ক্লান্তি জমে জমে হয়েছে অবসন্ন-
নিস্তেজ নির্জনে।

জীবনের এক কোণে হয়তো যৌবনে,
বিরূপতা নিয়ে তোমাকে চেয়েছি মনে।
পাব বলে’ইতো সাধ-
হৃদয়ের ব্যকুলতা,
জানি তুমি আসবে হৃদয় বাড়িয়ে-
কাটিয়ে জড়তা।

হৃদয়ের এই তাড়না চলেছি যখন,
দূর গহনে তোমার সাড়া পরেছে তখন।
দু হাত বাড়িয়ে-
ভ্রু দুইটি এলিয়ে,
মিলনের ইশারায় ডেকেছ আপন মনে-
যাইনি তো এড়িয়ে।

আমার এই শূন্য হৃদয়ের এক কোণে,
পূর্ণতায় ভরে গেছে তোমার মৃদু স্পন্দনে।
আঁধারের কালিমা-
নিয়েছে বিদায়,
মনে হল যেন বসন্ত এসেছে-
মিটে গেছে সুধা,
ফাল্গুনী হাওয়ায়।

কিরণের দর্শনে আত্মহারা হয়েছি আমি,
পাওয়ার এই সব মিলনের চেয়ে দামী।
নাহি জড়তা মনে-
কর্মের স্পৃহা জাগে,
প্রেমের কত সুখ সিন্ধুর সমাহার-
জানিনি আগে।

তবে সুখ কারো সম্পদ নয়,
সমাজের নিংড়ামি হানে ঘুর্ণি বলয়।
সেই চাতুরী ছলে-
বিষিয়েছে মন,
ভুলেছ অতীত ক্ষনিকের জন্য-
মিথ্যে শল্যায়,
ভাবছ দুষমন।

দিন যত গেল-
মনের জড়তা সব ধীরে ধীরে,
নিল বিদায়।
বুঝলে দুষমনি কে করে,
হৃদয়ের বিশ্বাস কে-
অমর্যাদা করে।
তার ধ্বংস নিশ্চিত-
অভিজাত্য আর অহংকারের খুঁটি নড়বড়ে।

লোভের জিহ্বা চুপসে হয়েছে লালাহীন,
তাই ফিরে চেয়েছ অতীত অমলিন।
পাবে সত্যিই তবে-
সেদিনের মত নয়,
হয়তো কিছু মানবতা ছিটকে গেছে-
জন্মে সংশয়।

জীবনের জড়তার দিন চলে গেছে ক্ষন,
তাই অতীতের লাগি কাঁদেনা মন।
হয়েছি পাষাণ-
হোকনা শ্মশান।
তবুও এই মন ক্লান্ত হবেনা-
আসুক তুফান,
জীবন অম্লান।

জীবন অমানিশায় যেমন জোনাকির আলো,
মিটিমিটি দিপ জ্বেলে দূর করে কালো।
আমার’ই লক্ষ্যে-
স্বপ্ন আমার,
হৃদয়ের আঁধার দূর করে আলো জ্বালাবে-
বিরহে তোমার।

শেষ জীবনে যে প্রত্যাশা তুমি করেছ,
কেন তুমি তব নিরব হয়ে রয়েছ?
দুই ওষ্ঠ খোলে,
দাওনা চুম্বন।
শত যন্ত্রণা মুছে নিয়েছি যা আছে বালে,
না হবে খন্ডন।

তবে উপদেশ মোর তোমার শিরে,
নিজেকে আবৃত করোনা সমাজের ডোরে।
সমাজ আজিকার-
স্বার্থে অটুট।
লিপ্সুক হৃদয় তাদের-
হায়েনার স্বরূপ,
দৃষ্টি লোলুপ।

ভুলে অতীতের অপেক্ষায় থেকো,
মিলনের সুরে সুরে আমাকে দেখো।
সময় চলে যাবে –
মিলনের প্রত্যাশায়,
প্রতিষ্ঠিত হয়ে আসব ফিরে পাশে-
ভুলনা হেলায়।


Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here