ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ির পরিণাম শুভ হয়  না: আবীর আহাদ

Share It
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করার কোনো প্রয়োজন নেই । কার বিশ্বাস সঠিক, কার বিশ্বাস বেঠিক কিংবা কার ধর্ম সঠিক, কার ধর্ম বেঠিক অথবা কে আস্তিক, কে নাস্তিক —-এসব নির্ণয়ের ভার স্বয়ং আল্লাহর এখতিয়ারে । ধর্ম ব্যবসায়ীরা এসব নিয়ে ব্যবসা ফাঁদতে পারেন, হানাহানি রক্তারক্তি ঘটাতে পারেন, তাতে কোনো মানুষের বা ধর্মের একরত্তি লাভ নেই । বরং ধর্ম সম্পর্কে সাধারণের মধ্যে একধরনের অনীহা সৃষ্টি হতে বাধ্য । এবং সচেতন মহলে ক্রমান্বয়ে অনীহা সৃষ্টি হয়েছেও ! একটা কথা মনে রাখতে হবে, যেখানেই ধর্মের উগ্রতা, সেখানেই কিন্তু ধর্মের অধ;পতন নিহিত । কারণ ধর্মান্ধতার মধ্যেই বর্বরতা নৃশংসতা পৈশাচিকতা ও পাশবিকতা নিহিত ।    আবার যে ধর্মীয় সমাজ জবরদস্তি ও ধর্মান্ধতা ছড়ায়, সে সমাজে মানবতা, সহমর্মিতা ও সম্প্রীতি থাকে না । আন্তধর্ম ও অন্যান্য ধর্মের সাথে সেখানে নিত্যনৈমিত্তিক মতবিরোধ সৃষ্টি হয়ে হিংসা বিদ্বেষ হানাহানি ও রক্তপাত ঘটে থাকে । তখন নিরীহ ও সচেতন মানুষের মনে ধর্মের প্রতি একধরনের বিমুখতা সৃষ্টি হয় ।

ফলে ধর্মের স্বাভাবিক গতিও ব্যহত হয় । সম্ভবত: এসব কারণে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে : ‘যার যার ধর্ম তার তার কাছে’, ‘ধর্মের ব্যাপারে কোনো জবরদস্তি নেই’ কোন ধর্ম সঠিক,’কোন ধর্ম বেঠিক তা নির্ণয়ের ভার আল্লার ওপর’, ‘কে আস্তিক কে নাস্তিক তার বিচারের ভার আল্লার ওপর’ । আর সবচেয়ে তাৎপর্যপূর্ণ বক্তব্য রয়েছে আরেকটি সুরায় । সেটি হলো : ‘সেবিবান মেজিয়ান, স্ক্রিফচার, পলিথিস্ট, ইহুদি খৃস্টান  মুসলমান—-এর বাইরে আর যারা আছে, যারা সৎ কার্য করে, তাদের কোনো ভয় নেই, নিশ্চয়ই তাদের জন্য প্রভূর পক্ষ থেকে পুরস্কার রয়েছে ।’

বাংলাদেশ রাষ্ট্রটি ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সব বাঙালির আত্মত্যাগ ও সংগ্রামের ফসল । বাঙালি জাতীয়তাবাদ ও ধর্মনিরপেক্ষতার আদর্শই ছিলো মুক্তিযুদ্ধের মূল চালিকাশক্তি । ফলে বাংলাদেশ চলবে এবং চলতে থাকবে সেই আদর্শের ভিত্তিতে । এখানে বহু ধর্মের সহাবস্থান মেনেই সব ধর্মাবলম্বীদের ধর্মচর্চা করতে হবে । তবে আমরা দেখতে পাচ্ছি, দেশের একটি উগ্র সাম্প্রদায়িক আলেম সমাজ যারা মুক্তিযুদ্ধের সময় রাজাকার আলবদর আলশামস আলমুজাহিদ বাহিনীর সদস্য হয়ে হানাদার পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীকে সশস্ত্র ও আদর্শিকভাবে সহযোগিতা করেছিলো তাদের অনেকেই এখনো সেই মতাবলম্বী হয়ে রয়েছে । তারা এখনো বাংলাদেশকে মনেপ্রাণে গ্রহণ করে না । তাদের উত্তরসূরিরাও একইভাবে একই পথে হাঁটছে । তারা কেউবা জামায়াত-শিবির, কেউবা বিএনপি, কেউবা জাতীয় পার্টি, কেউবা হেফাজতে ইসলাম, কেউবা ইসলামী আন্দোলন, কেউবা অন্যান্য  ইসলামী নামধারী জঙ্গি সংগঠন করে ।

এদের পাশাপাশি আরেকটি ইসলামী সংগঠন বা সংস্থাকে আমরা দেখছি, তারা অত্যন্ত নিরীহ । তারা  হলো আহমদীয়া সম্প্রদায় (কাদিয়ানী)। এই সম্প্রদায় আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী ও ধর্মনিরপেক্ষতার চিন্তাচেতনা ও আদর্শকে ধারণ করেন বলেই আমার মনে হয় । এ-কারণেই সম্ভবত: জামায়াতী, হেফাজতী ও অন্যান্য স্বাধীনতাবিরোধী জঙ্গিবাদীরা আহমদীয়া সম্প্রদায়কে  একটি ঠুনকো অজুহাতে অমুসলিমসহ কাফের বলে ফতোয়া দিয়ে থাকে ।

আমি তো আগেই বলেছি, কে কাফের, কে মুত্তাকি সে-বিচার করবেন স্বয়ং আল্লাহ্ । এ-নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশের ধর্মীয় অঙ্গনে কোনো অবস্থাতেই ধর্মীয় কোন্দল ও হানাহানি সৃষ্টির সুযোগ নেই । আমরা মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত জনগণ ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি পছন্দ করি না । পছন্দ করি না বলেই ভোটের রাজনীতিতে জামায়াত হেফাজত ও অন্যান্য সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর ভরাডুবি ঘটে । এ-বিষয়টি অনুধাবন করতে পারলে তাদের জন্য মঙ্গল ।

আর শেষ কথা হলো: ধর্মীয় আবরণে বা সাম্প্রদায়িক উন্মাদনা সৃষ্টি করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধ্বংস করার অপচেষ্টা করা হলে তাদের জন্য ন্যক্কারজনক পরাজয় অবধারিত । কারণ বাঙালি ধর্মভীরু হলেও ধর্মান্ধ নয় । বাঙালির স্বাভাবিক জীবনাচার, সংস্কৃতি, কৃষ্টি ও জাত্যাভিমান ধরে কেউ টান দিলে , তখন বাঙালি ধর্মের সব বাঁধন ছিঁড়ে ফেলতে এক মিনিটও সময় নেয় না । ইতিহাসে তার ভূরি ভূরি প্রমাণ রয়েছে । সুতরাং ধর্ম দিয়ে নয়, অসাম্প্রদায়িক চেতনা ও ধর্মনিরপেক্ষতার আদর্শ দিয়েই সমাজ ও রাষ্ট্রীয় জীবন নির্বাহ করতে হবে । এর ব্যত্যয় ঘটলে ধ্বংস অনিবার্য ।

* আবীর আহাদ
মুক্তিযোদ্ধা লেখক গবেষক
চেয়ারম্যান, একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ

  • সাংবাদিক নিয়োগ : দৈনিক মুক্ত আলো

  • Application Form - আবেদন ফরমটি যথাযথভাবে পূরণ করে নিচের সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। আবেদন করার আগে নিচে দেওয়া তথ্য গুলি মনোযোগ সহকারে পড়ে নিন।০১৮২৯৪২৪৭৭১ বিকাশ পার্সোনাল, এই নাম্বারে তিনশত টাকা (আবেদন ফি অফেরত যোগ্য) সেন্ড মানি করে নিচে ট্রানজেকশন আইডি উল্লেখ করুন। (অন্যথায় আপনার আবেদন গৃহীত হবে না,তাই আবেদন করার আগে অবশ্যই সেন্ড মানি করে নিবেন)
  • নির্দেশনার টি ভালভাবে পড়ুন

    সাংবাদিক নিয়োগ : দৈনিক মুক্ত আলো জেলা-উপজেলা ও কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সাংবাদিক/প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে।সারাদেশ থেকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান / নাতী-নাতনীদের ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রকৃত নাগরিকদের আবেদন করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল – আগ্রহীরা আগামী (৩০/০৯/২০২০ইং) এর মধ্যে আবেদন জমা দিন জমা দিনঃ ০১৮২৯৪২৪৭৭১ বিকাশ পার্সোনাল, এই নাম্বারে তিনশত টাকা (আবেদন ফি অফেরত যোগ্য) সেন্ড মানি করে নিচে ট্রানজেকশন আইডি উল্লেখ করেন। (অন্যথায় আপনার আবেদন গৃহীত হবে না,তাই আবেদন করার আগে অবশ্যই সেন্ড মানি করে নিবেন) সবার আগে দেশ ও বিদেশের সব খবরের পিছনের খবর জানতে ও জানাতে দেশের প্রতিটি জেলায় সংবাদ প্রতিনিধি,থানা প্রতিনিধি, বিশেষ প্রতিনিধি,বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি,ব্যুরো চিফ,ও গুরুত্বপূর্ণ বিটে স্টাফ রিপোর্টার,এবং স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুরুষ/মহিলা সেচ্ছাসেবী শিক্ষানবিশ সাংবাদিক নিয়োগ করা হবে । প্রর্থীর যোগ্যতা: # শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এইচ,এস,সি.অথবা সমমান হতে হবে। # প্রার্থীর নিজেস্ব ল্যাপটপ/ কম্পিউটার থাকলে ( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # এম,এস,ওয়ার্ডে বাংলায় টাইপিং জানা থাকলে( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # ক্যামেরা থাকালে( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # কোন কপি রাইট সংবাদ প্রেরন করা যাবে না। # প্রেরিত সংবাদের সহিত সংবাদ সর্ম্পকিত ছবি/ভিডিও পাঠানোর চেষ্টা করতে হবে।#অভিজ্ঞ প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। #প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতী-নাতনীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র: পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি আপলোড করুন। জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি আপলোড করুন। শিক্ষার্থীদের জন্য কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইডি কার্ডের ছবি আপলোড করুন। সর্বশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেটের ছবি আপলোড করুন। । অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে: অভিজ্ঞতা সনদের ছবি আপলোড করুন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যের ক্ষেত্রে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সকল কাগজপত্র ছবি আপলোড করুন। নির্বাচিত সংবাদ কর্মীদেরকে যোগ্যতা অনুযায়ী বিশেষ প্রক্রিয়ায় সম্মানী প্রদান করবে । যোগাযোগ: Phone: 01829424771 E-mail: doinikmuktoalo.editor@gmail.com Facebook: https://www.facebook.com/doinikmuktoalo.bd
  • আবেদন ফরম - apply now

  •  

Share It
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here