‘বিচ্ছেদের আপিল চলাকালীন দ্বিতীয় বিয়ে বৈধ!’

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিবেশি দেশ ভারতে সম্প্রতি সাড়া জাগিয়েছে আদালতের একটি রায়। এই রায় অনুযায়ী ভারতে হিন্দু আইনে বিবাহবিচ্ছেদের বিরুদ্ধে আদালতে আপিল অপেক্ষমাণ থাকাকালে দ্বিতীয় বিয়ে কার বেআঈনী হবে না। ভারতের হিন্দু আইন অনুযায়ী, বিবাহিত দম্পতির একজন ডিভোর্স চাইলে অন্যজন এর বিরুদ্ধে আপিল করতে পারেন। আপিল খারিজ হলে পুনরায় বিয়ে করা বৈধ। কিন্তু দেশটির সর্বোচ্চ আদালত বলেছে, আপিল চলাকালীন সময়েও দ্বিতীয় বিয়ে অবৈধ হবে না।

এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে দিল্লি হাইকোর্ট বলেছিলেন, বিবাহবিচ্ছেদের বিরুদ্ধে আপিল বহাল থাকা অবস্থায় বিয়ে করলে তা আইনের ৫(১) ধারার সঙ্গে সাংঘর্ষিক হবে। এবং এ বিয়ে অকার্যকর হবে। এক ব্যক্তির দ্বিতীয় স্ত্রীর করা এক আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট এ আদেশ দিয়েছিলেন। ওই ব্যক্তি হাইকোর্টের এ রায় চ্যালেঞ্জ করে সর্বোচ্চ আদালতে আপিল করেন। সুপ্রিম কোর্ট হাইকোর্টের রায়কে পাশ কাটিয়ে বলেন, এই দম্পতির বিয়ে বৈধ।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ওই ব্যক্তির প্রথম স্ত্রী তার সঙ্গে দাম্পত্য সম্পর্ক ছিন্ন করেন। কিন্তু তিনি এর বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করেন। আপিল চলাকালে তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে সমঝোতায় পৌঁছান এবং বিবাহবিচ্ছেদ গ্রহণ করতে ও আপিল আবেদন তুলে নিতে আদালতে আবেদন করেন। এসব আবেদনের বিষয়ে হাইকোর্ট রায় দেওয়ার আগের দিন রাতেই এই ব্যক্তি দ্বিতীয় বিয়ে করে বসেন।

কিন্তু তার নতুন সংসার সুখের হয়নি। ঝগড়া-বিবাদ লেগেই থাকত। এরপর তার দ্বিতীয় স্ত্রী এই বিয়ের বৈধতা নিয়ে আদালতে মামলা করেন। তিনি আবেদনে বলেন, আগের বিবাহবিচ্ছেদের আপিল শুনানি চলাকালে এ বিয়ে হয়েছে, তাই এর বৈধতা নেই। পারিবারিক আদালত তার এই আবেদন খারিজ করে দেন। কিন্তু হাইকোর্ট তার পক্ষে রায় দিয়ে বলেন এই বিয়ে অবৈধ। এরপর সর্বোচ্চ আদালত এই বিয়েকে বৈধ ঘোষণা করেন।

সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি এস এ ববদে ও বিচারপতি এল নগেশ্বরা রাও বলেন, বিবাহবিচ্ছেদের বিরুদ্ধে করা আপিলের রায় না হওয়া পর্যন্ত প্রথম বিয়ে বহাল রয়েছে, এমনটা নয়। তাই এই সময়ের মধ্যে আবার বিয়ে অবৈধ হবে না।

ভারতীয় আইনের ১৫ ধারায় বলা হয়েছে, বিবাহবিচ্ছেদের ডিক্রির দ্বারা সংসার ভেঙে যায় অথবা সেখানে যদি ডিক্রির বিরুদ্ধে আপিলের কোনো অধিকার না থাকে অথবা যদি আপিলের সুযোগ থেকেও থাকে, কিন্তু নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আপিল না করে অথবা দায়ের করা আপিল খারিজ হয়ে যায়, তাহলে আবার বিয়ে করা আইনসম্মত। আর ৫(১) ধারা অনুযায়ী বিধবা ও বিপত্নীক দুজন হিন্দু নারী-পুরুষ বিয়ে করতে চান তাহলে তা করা যাবে।


Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here