বিড়াল পালতে নিষেধাজ্ঞা

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

প্রকৃতির ভারসাম্য রক্ষার জন্যই বন্যপ্রাণিদের বাঁচিয়ে রাখা জরুরি। পৃথিবীর অনেক দেশেই বন্যপ্রাণীদের রক্ষার জন্য রয়েছে আইন। তবে এবার নিউজিল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চলীয় উপকূলের একটি শহরে বন্যপ্রাণীদের রক্ষার জন্য নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হচ্ছে বিড়ালের ওপর!
এনভায়রনমেন্ট সাউথ-ল্যান্ড প্রস্তাব করেছে, ওমাউইতে যত বিড়ালপ্রেমী রয়েছেন তাদের সবার বিড়ালকে বন্ধ্যা করতে হবে। বিড়ালগুলোর নিবন্ধন করার পাশাপাশি বিড়ালগুলোর শরীরে বসাতে হবে মাইক্রোচিপ। সেই পোষা বিড়ালগুলোর মৃত্যু হলে বিড়ালপ্রেমীরা নতুন করে আর কোন বিড়াল পালনের অনুমতি পাবেন না।
এনভায়রনমেন্ট সাউথ-ল্যান্ডের এমন সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করেছেন পরিবেশবাদী সংগঠন ও প্রাণী সংরক্ষণ কর্মীরা।
এমন কট্টর সিদ্ধান্তের যুক্তি হিসেবে তারা বলছেন, প্রতি বছর কোটি কোটি পাখি এবং স্তন্যপায়ী প্রাণীর মৃত্যুর জন্য দায়ী এই বিড়াল। সেখানকার একটি পাখি সংরক্ষণাগার দ্য স্মিথসোনিয়ান মাইগ্রেটরি বার্ড সেন্টারের প্রধান ডক্টর পিটার মারার বক্তব্য, বিড়াল চমৎকার পোষাপ্রাণী, এগুলো দেখতেও দারুণ! কিন্তু তাই বলে তাদের যেখানে সেখানে ঘুরে বেড়াতে দেয়া যায় না। এই কারণে এই গ্রামে বিড়ালদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করাটা জরুরি হয়ে পড়েছিল। একই সাথে তিনি বলেন, তিনি বিড়াল বিদ্বেষী নন কিংবা বিড়াল পালনের বিপক্ষেও নন।
এদিকে, ওমাউই ল্যান্ড কেয়ার চ্যারিটেবল ট্রাস্টের চেয়ারম্যান জন কলিনস বলেন, অতি মূল্যবান প্রাণী সম্পদ রক্ষায় বিড়াল পালনের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। আমরা বিড়াল বিদ্বেষী নই কিন্তু আমরা চাই আমাদের বন্যপ্রাণী-সমৃদ্ধ পরিবেশ থাকুক। -বিবিসি

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here