ভিটে থেকে উচ্ছেদ হলেন মুক্তিযোদ্ধা

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

যে ভিটে থেকে উচ্ছেদ হয়েছেন, তার পাশে মুক্তিযুদ্ধের সার্টিফিকেট নিয়ে বসে আছে অনিল সেন।আদালতের রায়ে রাঙামাটির কাউখালী উপজেলার ঘাগড়া ইউনিয়নের বীর মুক্তিযোদ্ধা অনিল সেন ও তার পরিবারকে উচ্ছেদ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৯ আগস্ট) এই মুক্তিযোদ্ধাকে পরিবারসহ ভিটে থেকে উচ্ছেদ করে রাঙামাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পল্লব হোম দাশের নেতৃত্বে স্থানীয় প্রশাসন। এ ঘটনায় শুক্রবার (১০ আগস্ট) সকালে ঘাগড়া এলাকায় মানববন্ধন করেছেন স্থানীয়রা। এ খবর পেয়ে দুপুরে ঘাগড়ায় ছুটে আসেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। উচ্ছেদ হওয়া মুক্তিযোদ্ধার পাশে থাকার ও তার পরিবারের পুনর্বাসনের ঘোষণা দেন তিনি।স্থানীয়রা জানায়, ২৫-৩০ বছর আগে ঘাগড়া ইউনিয়নে খাস জমিতে ঘর তুলে স্ত্রী, চার মেয়ে ও এক ছেলে নিয়ে বসবাস করে আসছিলেন মুক্তিযোদ্ধা অনিল সেন। কয়েক বছর আগে রাজ্যমনি ও বিশ্বজিৎ নামে স্থানীয় দুই ব্যক্তির সঙ্গে জমি নিয়ে অনিল সেনের বিরোধ দেখা দেয়। এর জেরে অনিল সেনের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন রাজ্যমনি ও বিশ্বজিৎ। পরে আদালতের রায়ে বৃহস্পতিবার তাকে বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে স্থানীয় প্রশাসন। এ সময় অনিল সেনের ইটের তৈরি ঘর ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়। সরেজমিন দেখা যায়, অনিল সেনের বাড়ির চারপাশের দেওয়াল ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। এখন খোলা আকাশের নিচে বাস করছে এই পরিবারটি । এদিকে, অনিল সেন ও তার পরিবারকে উচ্ছেদের প্রতিবাদে শুক্রবার সকালে ঘাগড়া এলাকায় রাঙামাটি-চট্টগ্রাম সড়কে মানববন্ধন করে স্থানীয়রা। এতে ঘাগড়া বাজার, কলাবাগানসহ বিভিন্ন এলাকার কয়েকশ’ লোক অংশ নেয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন–স্থানীয় ব্যবসায়ী মো. জাফর আলী, ছাত্রলীগ নেতা সাজীব দাশ, ক্ষতিগ্রস্ত বীর মুক্তিযোদ্ধার সন্তান রুবেলসহ অনেকে। এ ব্যাপারে স্থানীয় নুরুল আমিন বলেন, ‘বৃহস্পতিবার দুপুরে আমরা খবর পেয়ে অনিল সেনের বাড়িতে আসি। এরপর দেখি তার বাড়ি ভাঙা হচ্ছে। এ সময় আমরা দায়িত্বশীলদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হই। আমরা শুনেছি নোটিশ না দিয়েই অনিল সেনের বাড়ি ভাঙা হয়েছে।’ সজীব নামে আরও এক স্থানীয় বাসিন্দা বলেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকে মুক্তিযোদ্ধা অনিল সেনকে খোলা আকাশের নিচে থাকতে হচ্ছে। বিষয়টি দুঃখজনক।’ অনিল সেনের বড় মেয়ে রুমা দে বলেন, ‘খবর পেয়ে আমার শ্বশুরবাড়ি থেকে এসে দেখি আমাদের সাজানো সংসার ভেঙে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। আমার বাবা বাইরে বসে কান্না করছেন। আর মা অসুস্থ হয়ে পড়ে আছেন।’ মুক্তিযুদ্ধের পর খাস জমিতে ঘর তুলে তারা বসবাস করে আসছিলেন বলেও জানান তিনি। ঘাগড়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান জগদীশ চাকমা বলেন, ‘এভাবে ভাঙচুর করবে, এটা ভাবিনি। বিষয়টি দুঃখজনক।’ রাঙামাটির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট পল্লব হোম দাশ বলেন, ‘আদালতের নির্দেশে পেয়ে আমরা কাগজ দেখে উচ্ছেদ করেছি।’ এদিকে, মুক্তিযোদ্ধা অনিল সেনের বাড়ি উচ্ছেদ ও মানববন্ধনের খবর পেয়ে শুক্রবার দুপুরে কাউখালী উপজেলার ঘাগড়ায় ছুটে আসেন জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশীদ। তিনি মুক্তিযোদ্ধার পরিবার, স্থানীয় চেয়ারম্যান, মেম্বারদের সঙ্গে কথা বলেন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. নজরুল ইসলাম, কাউখালীর নির্বাহী অফিসার এএম জহিরুল হায়াত, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট উত্তম কুমার দাশ। এ ব্যাপারে জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ বলেন, ‘অনিল সেন দীর্ঘদিন ধরে ওই জমিতে বসবাস করে আসছিলেন। তার বাড়ি নিয়ে কোর্টে মামলা হয়েছিল। আদালতের আদেশে উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করা হয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘অনিল সেন একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। তার পুনর্বাসনে জেলা প্রশাসন থেকে আপতত ১০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। আমি অনিল সেনের সঙ্গে আছি। তার পুনর্বাসনের জন্য যা করা দরকার, সব করা হবে।’

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here