যশোরের মণিরামপুরে ২ যুবককে কুপিয়ে ও জবাই করে হত্যা  

Share It
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

জেমস আব্দুর রহিম রানা, স্টাফ রিপোর্টার : বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে যশোরের মণিরামপুর উপজেলার ঢাকুরিয়া উত্তরপাড়ায় ফাঁকা রাস্তার ওপরে দুই যুবককে কুপিয়ে ও গলা কেটে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। নিহতরা হলেন, পাশ্ববর্তী যশোর সদর উপজেলার বসুন্দিয়া জয়ন্তা গ্রামের প্রবাসী আক্তার গাজীর ছেলে বাদল গাজী (২২) ও নিকমল মোল্যার ছেলে আহাদ মোল্যা (২২)। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই।
বাদল রূপদিয়া বাজারে ইন্টারনেট সংযোগের কাজ করতেন। আর আহাদ পেশায় একজন কৃষক।
খবর পেয়ে রাত নয়টার দিকে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধারসহ ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা তাদের ব্যবহৃত মোটরসাইকেল ও দুটি মোবাইল ফোন উদ্ধার করেছে। তবে কারা কী কারণে তাদের হত্যা করা হতে পারে, তা এখনও জানা যায়নি।
ঘটনাস্থলের পাশের বাড়ির বাসিন্দা নাসির বিশ্বাস বলেন, ‘‘সন্ধ্যার কিছুসময় পরে আমি বাড়ির উঠোনে বসে ছিলাম। তখন রক্তাক্ত একজন দৌঁড়ে এসে বলে, ‘চাচা, আমারে বাঁচান।’ এই বলে সে অজ্ঞান হয়ে পড়ে যায়। তখন আমরা বাড়ির সবাই চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে নিয়ে ভ্যানে করে হাসপাতালে রওয়ানা হয়। পথে সদর উপজেলার চাউলিয়া গেটে ওই ছেলেটির মৃত্যু হয়। পরে লোকজন এগিয়ে গিয়ে দেখে, আরেক জনের লাশ রাস্তায় (ঘটনাস্থলে) পড়ে আছে। ঘটনাস্থলে পড়ে থাকা লাশটি বাদলের। আর হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত যুবকের নাম আসাদ।’’
নিহতদের স্বজনরা জানান, বাদল ক’দিন আগে নতুন মোটরসাইকেল কেনেন। ইন্টারনেট ব্যবসার পাশাপাশি তিনি ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালাতেন। আজ বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পরে বাদল ও আসাদ বসুন্দিয়া জয়ন্তা বাজারে ক্যারাম বোর্ড খেলছিলেন। তখন বাদলের মোবাইলে কল এলে তারা দুইজন মোটরসাইকেলে চেঁপে বেরিয়ে পড়ে।
স্থানীয়দের ধারণা, মোটরসাইকেল ছিনতাইয়ের উদ্দেশে তাদের ডেকে এনে খুন করে দুর্বৃত্তরা। কিন্তু ঘটনাটি আশপাশের লোক দ্রুতই টের পেয়ে যাওয়ায় তারা মোটরসাইকেল রাস্তার ওপর ফেলে পালিয়ে যায়।
মণিরামপুর থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই দেবাশীষ বিশ্বাস বলেন, ‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে এসেছি। লাশ দুটি ও মোটরসাইকেল উদ্ধার করে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। হত্যার কারণ এখনো জানা যায়নি।

Share It
  • 1
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    1
    Share

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here