facebook sharing buttonবাংলাভাষা প্রচলন আইন-১৯৮৭’ এবং হাইকোর্টের নির্দেশ অনুসারে সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের সাইনবোর্ড/বিজ্ঞাপনে বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করার দাবিতে বাংলা প্রচলন প্রয়াস’-এর উদ্যোগে মানববন্ধন ও অনুরোধপত্র বিলি বিতরণ করা হয়েছে।

শনিবার (৩১ অক্টোবর) সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনের আয়োজন করে বাংলা প্রচলন প্রয়াস।মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান, প্রধান সমন্বয়ক আলমগীর রুমি, কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক রাজিয়া সুলতানা দীপা, কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক ও চট্টগ্রাম বিভাগীয় প্রধান সমন্বয়ক মশিউর রহমান খান, মোড়ল আমজাদ, যশোর সাংবাদিক সমিতির সভাপতি সাজেদ রহমান প্রমুখ।বক্তব্যে মুক্তিযোদ্ধা ডা. মাহফুজুর রহমান বলেন, আমাদের দেশের স্বাধীনতার সূত্রপাত হয় ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। আমরা পৃথিবীর একমাত্র জাতি যারা মাতৃভাষাকে রাষ্ট্রভাষা হিসেবে স্বীকৃতি আদায়ের জন্য জীবন দিয়েছে। সেই দীর্ঘ সংগ্রামের প্রতি সম্মান জানিয়ে ১৯৮৭ সালে যে আইন হয়, সেই আইন আমাদের দেশের ব্যবসায়ী বা অন্যান্য পেশার মানুষ সম্মান জানায়নি। এমনকি ২০১৪ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি মহামান্য হাইকোর্ট নির্দেশ দেন সকল অফিস, আদালত, গণমাধ্যমসহ সর্বত্র বাংলা ভাষা ব্যবহারের নির্দেশ কেন দেয়া হবে না তা জানতে রুল জারি করেন। সেটাকেও বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে এখনও বিদেশী ভাষায় আমরা বিজ্ঞাপন তৈরি করছি, এমনকি সাইনবোর্ডে ও বিদেশী ভাষার আধিক্য দেখছি যা অত্যন্ত হতাশাজনক।সংগঠনের প্রধান সমন্বয়ক আলমগীর রুমি তার বক্তব্যে বলেন, আইন ও আদালতের প্রতি সম্মান প্রদর্শন আমাদের দায়িত্ব। কিন্তু সেই আদালতের অবমাননা অত্যন্ত দুঃখজনক। সবচেয়ে হতাশার বিষয়, সরকারী গেজেটে নির্দেশ থাকা সত্ত্বেও এখনও সরকারী দপ্তরগুলো কোন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি বা করছে না। এ বিষয়ে সরকারের কঠোর নজরদারি অত্যন্ত কাম্য। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীতে এই আইন সংশোধন করে ন্যুনতম ১ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ন্যুনতম ৬ মাসের কারাদণ্ডের বিধান রাখা দরকার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here