মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল বাঙালির স্বজনেরা জানান, দীর্ঘদিন পেটের পীড়ায় ভুগছিলেন তিনি। এনায়েতপুর খাজা ইউনুস আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত সপ্তাহে চিকিৎসা নিয়ে কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর বাড়ি ফিরে আসেন। কিন্তু শুক্রবার সকাল থেকে আবার তার পেটে তীব্র ব্যথা শুরু হয়। একপর্যায়ে ব্যথার যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে সবার অজান্তে নিজ ঘরে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি।

উল্লাপাড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দীপক কুমার দাশ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠিয়ে মরদেহের সুরতহাল রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। সুরতহাল রিপোর্টে সন্দেহজনক কিছু না থাকায় পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) দেওয়ান মওদুদ আহম্মেদ বলেন, শনিবার সকালে কালিগঞ্জ কবরস্থানে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল জলিল বাঙালিকে দাফন করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here