১০ বছরে তিনগুন জিডিপি

১০ বছরে তিনগুন জিডিপি
১০ বছরে তিনগুন জিডিপি
Share It
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

চলতি বাজারমূল্যে গেল অর্থবছর (২০১৯-২০) শেষে বাংলাদেশের মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) আকার দাঁড়িয়েছে ২৭ লাখ ৯৬ হাজার কোটি টাকায়। তবে, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) দেয়া এই হিসাবটি প্রাথমিক। এখনও চূড়ান্ত হিসাব প্রকাশ করেনি সংস্থাটি। ২০১০-১১ অর্থবছরের এর আকার ছিল ৯ লাখ ১৬ হাজার কোটি টাকা। অর্থবছর ১০ বছরের ব্যবধানে ৩ গুণ হয়েছে দেশের জিডিপির আকার।

দেশ স্বাধীনের পর ১৯৭২ সালে কৃষি প্রধান বাংলাদেশের জিডিপির আকার ছিল ৫৩ হাজার ৪৪৮ কোটি টাকা (বর্তমান বাজার মূল্য)। সে হিসাবে জিডিপির আকার বেড়েছে ৫২.৩১ গুন। ১৯৮২ সালে জিডিপির আকার দাঁড়ায় ১ লাখ ৫৭ হাজার ৫০৫ কোটি টাকায়। অর্থাৎ ১০ বছরের ব্যবধানে প্রায় ৩ গুন হয় জিডিপি। ১০৯২ সালে ২ লাখ ৬৯ হাজার ৫৩৫ কোটি টাকা, ২০০২ সালে ৪ লাখ ৬৫ হাজার ১২০ কোটি আর ২০১২ সালে দেশের জিডিপির পরিমাণ হয় ১১ লাখ ৩৩ হাজার ৯শ’ কোটি টাকা।

বিবিএস’র হিসাবে অর্থবছর হিসেবে গত ১০ বছরের জিডিপি বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। ২০১০-১১ অর্থবছরে জিডিপির আকার ছিল ৯ লাখ ১৬ হাজার কোটি টাকা, ২০১১-১২ অর্থবছরে ১০ লাখ ৫৫ হাজার কোটি, ২০১২-১৩ অর্থবছরে ১১ লাখ ৯৯ হাজার কোটি, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ১৩ লাখ ৪৪ হাজার কোটি, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ১৫ লাখ ১৬ হাজার কোটি, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১৭ লাখ ৩৩ হাজার কোটি, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ১৯ লাখ ৭৬ হাজার কোটি, ২০১৭-১৮ অর্থবছরের ২২ লাখ ৫১ হাজার কোটি আর ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এর আকার দাঁড়ায় ২৫ লাখ ৪২ হাজার কোটি টাকায়।

খাতভিত্তিক পর্যালোচনায় দেখা যায়, কৃষি থেকে সরে শিল্প নির্ভর অর্থনীতির পথে হাঁটছে বাংলাদেশ। কয়েক বছর ধরে দেশের জিডিপিতে কমছে কৃষির অংশ। সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরের প্রাথমিক হিসাবে (বর্তমান বাজারমূল্য) এ খাতের বর্তমান আকার ৩ লাখ ৪৭ হাজার ৬৩৮ কোটি টাকা। অর্থাৎ জিডিপির ১৩.০২ শতাংশ এসেছে এ খাত থেকে। এর আগের অর্থবছরে জিডিপির ১৩.৩২ শতাংশ এসেছে কৃষি থেকে। ওই বছর (২০১৮-১৯) কৃষির আকার ছিল ৩ লাখ ২২ হাজার ৩৯৪ কোটি টাকা। এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জিডিপিতে কৃষিখাত যোগ করে ২ লাখ ৯৪ হাজার ২৩৪ কোটি টাকা। সেবছর জিডিপির ১৩.৮২ শতাংশ আসে এই খাত থেকে। ২০১৬-১৭ অর্থবছরের জিডিপির ১৪.১৭ শতাংশ আসে কৃষি থেকে, সে বছর কৃষির আকার ছিল ২ লাখ ৬৫ হাজার ২৫ কোটি টাকা। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে কৃষি খাতের আকার ছিল ২ লাখ ৪৩ হাজার ৩৯০ কোটি টাকা অর্থাৎ জিডিপির ১৪.৭৭ শতাংশ ছিল কৃষির অংশ।

এই সময়টাতে বেসরকারি বিনিয়োগে স্থবিরতা না কাটলেও জিডিপিতে একটু একটু করে বেড়েছে শিল্পখাতের অংশ। যদিও, শতাংশের বিচারে গেল অর্থবছরের প্রাথমিক হিসাবে জিডিপিতে এখাতের যোগান কমেছে দশমিক ২ শতাংশ। বছর ভিত্তিক হিসাবে দেখা যায় ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৪ লাখ ৭৩ হাজার ৮৭১ কোটি টাকা, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫ লাখ ৪৮ হাজার ৩০৬ কোটি, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৬ লাখ ৪২ হাজার ২১৯ কোটি, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৭ লাখ ৫৩ হাজার ৮১২ কোটি আর গেল অর্থবছরের (২০১৯-২০) প্রাথমিক হিসাবে শিল্পখাতের আকার ৮ লাখ ৩১ হাজার ৯০ কোটি টাকা। শতাংশের হিসাবে গেল অর্থবছর জিডিপির ৩১.১৩ শতাংশ এসেছে শিল্প থেকে। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩১.১৫ শতাংশ, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৩০.১৭, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২৯.৩২ আর ২০১৫-১৫ অর্থবছরে শিল্পখাত থেকে এসেছে জিডিপির ২৮.৭৭ শতাংশ।

অনেক দিন ধরেই বাংলাদেশের জিডিপির অর্ধেকের বেশি আসছে সেবাখাত থেকে। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে জিডিপির ৫৬.৪৬ শতাংশ, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৫৬.৫০, ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ৫৬.০০, ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৫৫.৫৩ আর ২০১৯-২০ অর্থবছরে ৫৫.৮৬ ভাগ এসেছে এই খাত থেকে। উল্লেখিত অর্থবছরে বর্তমান বাজার মূল্যে সেবাখাতের আকার ছিল যথাক্রমে ৯ লাখ ৩০ হাজার ৫০ কোটি টাকা, ১০ লাখ ৫৬ হাজার ৫৯১ কোটি, ১১ লাখ ৯১ হাজার ৮৭০ কোটি, ১৩ লাখ ৪৩ হাজার ৬৮৫ কোটি ও ১৪ লাখ ৯১ হাজার ৪২৩ কোটি টাকা।

  • সাংবাদিক নিয়োগ : দৈনিক মুক্ত আলো

  • Application Form - আবেদন ফরমটি যথাযথভাবে পূরণ করে নিচের সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। আবেদন করার আগে নিচে দেওয়া তথ্য গুলি মনোযোগ সহকারে পড়ে নিন।০১৮২৯৪২৪৭৭১ বিকাশ পার্সোনাল, এই নাম্বারে তিনশত টাকা (আবেদন ফি অফেরত যোগ্য) সেন্ড মানি করে নিচে ট্রানজেকশন আইডি উল্লেখ করুন। (অন্যথায় আপনার আবেদন গৃহীত হবে না,তাই আবেদন করার আগে অবশ্যই সেন্ড মানি করে নিবেন)
  • নির্দেশনার টি ভালভাবে পড়ুন

    সাংবাদিক নিয়োগ : দৈনিক মুক্ত আলো জেলা-উপজেলা ও কলেজ/বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে সাংবাদিক/প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে।সারাদেশ থেকে প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান / নাতী-নাতনীদের ও গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রকৃত নাগরিকদের আবেদন করার জন্য বিশেষভাবে অনুরোধ করা হল – আগ্রহীরা আগামী (৩০/০৯/২০২০ইং) এর মধ্যে আবেদন জমা দিন জমা দিনঃ ০১৮২৯৪২৪৭৭১ বিকাশ পার্সোনাল, এই নাম্বারে তিনশত টাকা (আবেদন ফি অফেরত যোগ্য) সেন্ড মানি করে নিচে ট্রানজেকশন আইডি উল্লেখ করেন। (অন্যথায় আপনার আবেদন গৃহীত হবে না,তাই আবেদন করার আগে অবশ্যই সেন্ড মানি করে নিবেন) সবার আগে দেশ ও বিদেশের সব খবরের পিছনের খবর জানতে ও জানাতে দেশের প্রতিটি জেলায় সংবাদ প্রতিনিধি,থানা প্রতিনিধি, বিশেষ প্রতিনিধি,বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি,ব্যুরো চিফ,ও গুরুত্বপূর্ণ বিটে স্টাফ রিপোর্টার,এবং স্কুল,কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পুরুষ/মহিলা সেচ্ছাসেবী শিক্ষানবিশ সাংবাদিক নিয়োগ করা হবে । প্রর্থীর যোগ্যতা: # শিক্ষাগত যোগ্যতা কমপক্ষে এইচ,এস,সি.অথবা সমমান হতে হবে। # প্রার্থীর নিজেস্ব ল্যাপটপ/ কম্পিউটার থাকলে ( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # এম,এস,ওয়ার্ডে বাংলায় টাইপিং জানা থাকলে( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # ক্যামেরা থাকালে( অগ্রাধিকার দেওয়া হবে) # কোন কপি রাইট সংবাদ প্রেরন করা যাবে না। # প্রেরিত সংবাদের সহিত সংবাদ সর্ম্পকিত ছবি/ভিডিও পাঠানোর চেষ্টা করতে হবে।#অভিজ্ঞ প্রার্থীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। #প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ও নাতী-নাতনীদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে। প্রয়োজনীয় কাগজপত্র: পাসপোর্ট সাইজের রঙিন ছবি আপলোড করুন। জাতীয় পরিচয় পত্রের ছবি আপলোড করুন। শিক্ষার্থীদের জন্য কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইডি কার্ডের ছবি আপলোড করুন। সর্বশেষ শিক্ষাগত যোগ্যতার সার্টিফিকেটের ছবি আপলোড করুন। । অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে: অভিজ্ঞতা সনদের ছবি আপলোড করুন। মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যের ক্ষেত্রে: মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সকল কাগজপত্র ছবি আপলোড করুন। নির্বাচিত সংবাদ কর্মীদেরকে যোগ্যতা অনুযায়ী বিশেষ প্রক্রিয়ায় সম্মানী প্রদান করবে । যোগাযোগ: Phone: 01829424771 E-mail: doinikmuktoalo.editor@gmail.com Facebook: https://www.facebook.com/doinikmuktoalo.bd
  • আবেদন ফরম - apply now

  •  

Share It
  • 3
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    3
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here