আরো কিছু বাকি ছিল ‌-মাহফুজ শাকিল

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

পর্ব – ০২

  যে বাড়িতে অনিমা-নীলিমার দুষ্টমিতে মুখরিত ছিল গোটা পরিবার সে বাড়িতে আজ নীলিমার অস্তিত্ব নেই! আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না নীলিমা সত্যিই মারা গেছে। সেদিন সকাল থেকেই মনমরা হয়ে বসে ছিল বোনটা আমার। বারান্দায় এককোনে বসে কি মনে করে যেন আকাশের দিকে তাকিয়ে কি যেন খুজছিল সে হঠাৎ দুপুরে বাসা থেকে বের হয়ে গেল আর ফিরল না। সবাই বলাবলি করছে নীলিমা আত্নহত্যা করেছে কিন্তু লোকমুখে তো আমরা কত কথাই শুনি এর সবটা কি সত্যি হয়! আমি বিশ্বাস করি নীলিমা এমন কাজ করতে পারে না এমন কাজ ওর মত সদা হাস্যজ্জল মেয়ের দ্বারা করা সম্ভব নয়। সবাই বললেই আমার মন বলে নীলিমা একদিন ফিরে এসে আমাকে জড়িয়ে ধরে বলবে দিদি আমার চশমা টা ঘোলা হয়ে গেছে মুছে দিবিনা! নীলিমার অসমাপ্ত ডায়েরী টা যে রহস্য রেখে গেলো সবার কাছে। সেদিন হঠাৎ আমার ড্রয়ারে ওর লেখা ডায়েরী টা আবিস্কার করলাম। যতবার পড়ি বারবার চেষ্টা করি ডায়েরীর কোন এক পাতায় ওর সন্ধান পাওয়ার জন্য। ছোট ছোট করে লেখা অক্ষরে কিছু বাক্য বারবার পড়ি আর পড়তেই থাকি যেখানে ওকে খুঁজে পাবো আর ফিরিয়ে নিয়ে আসব… প্রচন্ড কষ্ট হচ্ছে যে নীল কে আমি কল্পনায় এত চেয়েছি কিন্তু সে আর আসবে না কখনও, আচ্ছা সে কি রক্ত-মাংসের মানুষ নাকি শুধুই কল্পনা নাকি মৃত! আজ নীল কে খুব কাছে পেতে ইচ্ছে করছে। ও হ্যা নীল, আমার জীবনের অন্যতম এক অধ্যায় সৃষ্টিকারী ছেলেটির নাম যাকে আমি আমার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর মুহূর্তগুলি শেয়ার করেছি কিন্তু আজ তাকে পাগলের মত খুজেও কোথাও না পেয়ে কেন জানি মৃত ভাবতে শুরু করেছি। নিজেকে মানুসিক ভারসম্যহীন ভাবতে শুরু করছি কেন আজ আমি! এদিকে আমার এমন করূন পরিস্হিতি বুঝতে পেরে হঠাৎ নীলের আগমন। কল্পনার নীলকে হঠাৎ এভাবে সামনে দেখতে পেয়ে আমি অবাক চোখে তাকিয়ে আছি। আচ্ছা এটাই কি সেই নীল যার সাথে আমি দিনের পর দিন নিজের ভাললাগা, কাউকে না বলা অনেক কথা শেয়ার করতাম আর নীল সেই গল্প ধৈর্য সহকারে মনোযোগ দিয়ে শুনত। কল্পনার নীল আর বাস্তবের নীলকে কেন জানি মেলাতে পারছি না, কল্পনার নীল তো চুলের বাঁ পাশে সিঁথি কাটত কিন্তু এই নীল তো ডান পাশে, কল্পনায় যে নীলকে এতদিন দেখতাম সে তো চোখে সানগ্লাস পরত এই নীলের চোখে কোন গ্লাস নেই, ঐ নীলের তো কালো শার্ট পরে আসার কথা ছিল কিন্তু এই নীল কেন সাদা শার্ট পরল! এমন আশ্চর্য চোখে তাকিয়ে থাকা আমাকে দেখে হয়ত নীল কিছুটা লজ্জা পাচ্ছে পাওয়ারই কথা সে তো আমার কল্পনায় বসবাস করেছিল এতদিন সেই কল্পনায় আঁকা ছবি হয়ে তো সে আজ আসেনি। আচ্ছা কেন আমি ভালবাসলাম কাউকে, কেন কারো জন্য আমার চোখ আজ ভারী হচ্ছে, কেন কারো জন্য আমি দিনের পর দিন অপেক্ষা করছিলাম আমার তো এমনটা করার কথা না যে মেয়েটা দিনের পর দিন অনেক ছেলের চোখের ঘুম হারাম করত বলে জানত, যে কিনা অনেকের কাছে আসার কৌশলী প্রস্তাব কে অবলীলায় হাসি-তামাশায় উড়িয়ে দিত সে কিনা একজন অদেখা মানুষ কে ভালবেসে ফেলল! কি আছে এই ছেলের মধ্যে কেন এত আবেগে জড়িয়ে গেলাম আমি তার প্রতি! নীল নিজেকে সামলে নিয়ে আমার পাশে বসল, শক্ত করে আমার হাতটি চেপে ধরল কেন জানি মুহূর্তেই আমি সকল ভাবনা কে সরিয়ে দিয়ে অবলীলায় নীলের কাধে মাথা রাখলাম। কেন জানি বারবার অবাক হচ্ছি প্রথম দেখায় কেন তাকে এত আপন লাগছে আমার সে তো আমার কল্পনার ছবিও না তাহলে কিভাবে এত কাছে টানছে সে আমাকে! ডায়েরী বন্ধ করে আবার স্তব্ধ হয়ে বসে থাকলাম বরাবরের মতই। কে এই নীল? তাহলে কি নীলের কাছেই আমাদের নীলিমাকে খুঁজে পাবো? নীলই কি পারবে নীলিমাকে খুঁজে আনতে!

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here