ধামরাইয়ে এনজিওর কিস্তি না দেওয়ায় মুক্তিযোদ্ধাকে মারধর গ্রেফতার এনজিওর মালিক

Share It
  • 57
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    57
    Shares

মাহবুবুল আলম,,নিজস্ব প্রতিবেদক(ধামরাই): ঢাকার ধামরাই উপজেলায় এনজিওর কিস্তি না দেওয়ায় এক মুক্তিযোদ্ধাকে বাসায় আটকে রেখে মারধর করেছে এনজিও মালিক এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।পুলিশ খবর পেয়ে ওই মুক্তিযোদ্ধাকে উদ্ধার করে তার স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে থানা পুলিশ। এই ঘটনার সাথে জড়িত পল্লি মঙ্গল স্বর্ণিভর এনজিওর মালিক মতিউর রহমানকে (৪০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার সকালে আসামীকে আদালতে প্রেরণ করা করা হয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাকের (৬৫) বাড়ি উপজেলার পটল গ্রামে। তিনি অবসরপ্রাপ্ত একজন শিক্ষক। পুলিশ ও এলাকাবাসীর কাছ থেকে জানা যায়,আশুলিয়া থানার গণকবাড়ি এলাকার চাঁন মিয়ার ছেলে মতিউর রহমানের পল্লি মঙ্গল স্বর্ণিভর নামের একটি বেসরকারি এনজিও রয়েছে।ধামরাই উপজেলার ভাড়ারিয়া আমতলা বাসষ্ট্যান্ডে ওই এনজিওর একটি অফিস রয়েছে। মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক ওই এনজিও থেকে তিন বছর পূর্বে দুই লাখ টাকা কিস্তি নেয়। কিস্তিও ঠিকঠাক মত দিচ্ছিল। করোনার কারনে সরকার কিস্তি নেওয়া বন্ধ ঘোষণা করলে মুক্তিযোদ্ধা রাজ্জাক ৩ মাস ধরে কিস্তি দেওয়া বন্ধ করে দেয়। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে ওই মুক্তিযোদ্ধাকে ফোন করে আমতলা বাজারে ডেকে আনে এনজিওর মালিক মতিউর। আমতলা বাজারে মুক্তিযোদ্ধা আসলে তাকে তার অফিস কার্যালয়ে নিয়ে যায়। মুক্তিযোদ্ধার কাছে কিস্তির বাকি টাকা দাবি করে।

তিনি টাকা দেওয়ার সময় চাইলে তাকে বেদম মারধর করে একটি ঘরে আটক করে রাখে এনজিও মালিক মতি রহমান। পরে রাত ৮টার দিকে মুক্তিযোদ্ধার ছেলে রাসেল হোসেনকে ফোন করে কিস্তি টাকা দিয়ে তার বাবাকে ছাড়িয়ে নিয়ে যেতে বলে। এসময় ছেলে রাসেল থানায় ফোন দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মুক্তিযোদ্ধাকে উদ্ধার করে।এতে এনজিওর মালিক মতিউর রহমানকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। এঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে ধামরাই থানায়। মামলা নং-০২। এ বিষয়ে মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রাজ্জাক জানান,কিস্তি টাকা দিতে না পারায় তাকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে বাসায় আটকে রেখে বেদম মারধর করেছে মতি রহমান। তিনি সরকারের কাছে সুষ্ঠ বিচার দাবি করেছেন।তিনি একজন মুক্তিযোদ্ধা আর তার সাথে এমন খারাপ আচরণ করা হয়েছে। এই কথা বলে কান্নায় ভেঙে পড়েন মুক্তিযোদ্দা আব্দুর রাজ্জাক। এব্যাপারে ধামরাই থানার উপ-পুলিশ কর্মকর্তা ও মামলার তদন্তÍকারী কর্মকর্তা মোঃ আবুল খায়ের মিয়া বলেন,বীর মুক্তিযোদ্ধাকে উদ্ধার করা হয়েছে।এক মুক্তিযোদ্ধার সাথে এমন আচরণ করা ঠিক হয় নি।

ঘটনার সাথে জড়িত এনজিওর মালিক আসামী মতিউর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে এবং থানায় মামলা হয়েছে। এলাকাবাসী বলেন, ধামরাই উপজেলায় এমন অনেক ক্ষুদ্র ঝৃণ সমবায় নামে অনেক এনজিও রয়েছে যারা জনগনের কাছ থেকে জোর পূর্বক টাকা আধায় করে থাকে। বর্তমানে দেশের করোনা পরিস্থিতির কারনে মানুষের কাজকর্ম অনেক ক্ষেত্রে বন্ধ রয়েছে তার পরও এনজিওর গ্রাস থেকে মুক্তি পাচ্ছে না নি¤œ আয়ের অসহায় সাধারণ মানুষ। এ বিষয়ে ধামরাই উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মো: হাসান বলেন, কিস্তির টাকার জন্য এক জন মুক্তিযোদ্দার সাথে এনজিওর মালিকের কারাপ আচরণ করা ঠিক হয় নি।এটি খুবই দু:খজনক। তারা দেশের বীর সন্তান। তাছাড়া সরকার করোনাকালীন সময়ে কিস্তির টাকা আদায়ের ব্যাপারে শিথিল করে দিয়েছে।


Share It
  • 57
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
    57
    Shares

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here