প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার বাড়লে দরও বাড়ছে

জুলাই মাসে তালিকাভুক্ত ইনটেক অনলাইন কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ারের পরিমাণ ব্যাপক হারে বেড়েছে। গত জুন শেষে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার ছিল ১২ শতাংশেরও কম। জুলাই শেষে তা ৩৯ শতাংশ ছাড়ায়। অর্থাৎ এক মাসে কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ২৭ শতাংশের বেশি কিনেছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা।

হঠাৎ প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার বৃদ্ধির প্রভাবও পড়েছে কোম্পানিটির শেয়ারদরে। জুনের শেষে ইনটেক অনলাইনের শেয়ার ১৭ টাকার নিচে কেনাবেচা হয়। জুলাই থেকে তা লাগামহীনভাবে বাড়তে থাকে। জুলাই শেষ হওয়ার আগেই তা ২৬ টাকা ছাড়ায়। অর্থাৎ ৫০ শতাংশের ওপর দর বেড়েছে। আগস্টেও শেয়ারটির দরবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে। গতকাল সর্বশেষ সাড়ে ৩৬ টাকা দরে এটি কেনাবেচা হয়েছে। অবস্থান করছে অন্তত এক বছরের সর্বোচ্চ দরে।

শুধু ইনটেক নয়, অনেক স্বল্প মূলধনী এবং সাম্প্রতিক সময়ে অস্বাভাবিক হারে দরবৃদ্ধি পাওয়া অনেক কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে। প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার বৃদ্ধি পাওয়া বাকি শেয়ারগুলোর দরও বেড়েছে। বিপরীতে যেসব কোম্পানি থেকে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার কমেছে, সেগুলোর বেশিরভাগের শেয়ারদর কমেছে। ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই ও সিএসই) তথ্য পর্যালোচনায় এমন চিত্র মিলেছে। বাজার-সংশ্নিষ্টদের অভিযোগ, যেসব কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেশি বেড়েছে, সেগুলোর বড় অংশের ক্ষেত্রে কারসাজি করে শেয়ারদর বাড়ানো হয়েছে।

বাজার-সংশ্নিষ্টরা উদাহরণ হিসেবে লিগ্যাসি ফুটওয়্যারের কথা বলেন। অস্বাভাবিক দরবৃদ্ধি ও মূল্য কারসাজির কারণে সম্প্রতি নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি থেকে লেনদেন স্থগিত করে দেওয়া এ কোম্পানিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার মোটের ওপর ১৮ শতাংশের বেশি বেড়েছে এক মাসে। কোম্পানিটিতে এদের শেয়ার গত জুন শেষে ছিল ৬ শতাংশ, যা জুলাই শেষে বেড়ে সোয়া ২৪ শতাংশ হয়েছে। একই সময়ে শেয়ারটির দর ৭৫ থেকে বেড়ে ২১২ টাকা ছাড়ায়। এ ছাড়া খুলনা প্রিন্টিং অ্যান্ড প্যাকেজিংয়ে সাড়ে ১০ শতাংশ এবং সায়হাম টেক্সটাইলে ১০ শতাংশ বেড়েছে। এ ক্ষেত্রে খুলনা প্রিন্টিংয়ের শেয়ারদর দ্বিগুণ হয়েছে। ৬০ শতাংশ দর বেড়েছে সায়হাম টেক্সটাইলের।

এ ছাড়া সমতা লেদার, সিমটেক্স, নূরানী ডাইং, পেনিনসুলা চিটাগং, জেএমআই সিরিঞ্জেস, সিটি ব্যাংক, এএফসি এগ্রো, বিবিএস, ফরচুন সুজ ও স্যোশাল ইসলামী ব্যাংকে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ৩ থেকে সাড়ে ৫ শতাংশ বেড়েছে। এসব কোম্পানির শেয়ারদরও বেড়েছে।

বিপরীতে তালিকাভুক্তির মাসেই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বসুন্ধরা পেপার মিলসের ধারণ করা সব শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। তালিকাভুক্তির আগে কোম্পানিটির মোট শেয়ারের প্রায় ৯ শতাংশ শেয়ার ছিল এ বিনিয়োগকারী গ্রুপের হাতে। জুলাই শেষে এদের হাতে কোনো শেয়ারই ছিল না। পুরো শেয়ারই গেছে ব্যক্তিবিনিয়োগকারীদের অ্যাকাউন্টে। জুলাই মাসের শুরুতে তালিকাভুক্ত হওয়া এ কোম্পানির শেয়ার শুরুতে ১৯০ টাকায় কেনাবেচা হলেও জুলাইয়ের শেষে তা ১৩০ টাকায় নেমে আসে।

একই রকম অবস্থা ছিল প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমে যাওয়া কোম্পানিগুলোতে। যেমন গত জুলাইয়ে তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর মধ্যে সর্বাধিক ১৩ শতাংশ শেয়ার কমেছে প্রাইম ইন্স্যুরেন্স থেকে। অর্থাৎ প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা এ কোম্পানি থেকে তাদের বড় অঙ্কের বিনিয়োগ প্রত্যাহার করেছেন। বীমা কোম্পানিটিতে গত জুন শেষে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার ছিল মোটের ৩৩ শতাংশ, যা জুলাই শেষে নেমে এসেছে ১৮ শতাংশে। জুলাইয়ের শুরুতে শেয়ারটির দর ছিল ১৬ টাকার ওপর, যা মাস শেষে ১৩ টাকায় নামে। এ ছাড়া আরামিট লিমিটেড থেকে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার মোটের ৮ শতাংশ কমে ১৫ শতাংশে নেমেছে। এপেক্স ফুডে পৌনে ৮ শতাংশ কমে নেমেছে ৫ দশমিক ৩৫ শতাংশে। উসমানিয়া গ্লাস থেকে কমেছে ৬ দশমিক ৮২ শতাংশে। জুলাই শেষে কোম্পানিটির মোট শেয়ারে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের অংশ নেমেছে ৫ দশমিক ৩০ শতাংশে। কোম্পানির শেয়ারদর পর্যালোচনায় দেখা গেছে, জুলাইয়ের শুরুতে ৫২২ টাকায় শেয়ার কেনাবেচা হলেও পরের এক সপ্তাহে তা ৪২৬ টাকায় নামে। পরের দুই সপ্তাহে দর বেড়ে ৫৮০ টাকা ছাড়ালেও শেষ সপ্তাহে শেয়ারটির দর আবার কমে ৫০০ টাকায় নেমে আসে। অর্থাৎ মাসজুড়ে শেয়ারটির দরে বেশ অস্থিরতা দেখা গেছে। গত মাসে আরও যেসব কোম্পানির মোট শেয়ার থেকে ৫ শতাংশের ওপর প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার কমেছে, সেগুলো হলো- আরএসআরএম স্টিল, জেমিনি সি ফুড, আনলিমা ইয়ার্ন, প্রাইম টেক্সটাইল ও গ্লোবাল হেভি কেমিক্যাল। মোট শেয়ার থেকে ৪ শতাংশের পর শেয়ার কমেছে দেশ গার্মেন্টস, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজ ও আজিজ পাইপস থেকে। কোম্পানির মোট শেয়ার থেকে প্রাতিষ্ঠান শেয়ার অন্তত ৩ শতাংশ কমেছে স্ট্যান্ডার্ড সিরামিক, ইন্ট্রাকো, গোল্ডেন হারভেস্ট, এপেক্স স্পিনিং ও বিডি ল্যাম্পস থেকে। আর ২৫ কোম্পানি থেকে প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার কমেছে ১ থেকে প্রায় ৩ শতাংশ পর্যন্ত।

বিপরীতে মোট শেয়ারে ১ শতাংশ বা এর বেশি পরিমাণ প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার বেড়েছে এমন কোম্পানি ৩৮টি। ১ থেকে ৩ শতাংশ পর্যন্ত প্রাতিষ্ঠানিক শেয়ার বেড়েছে এমন কোম্পানির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- সায়হাম কটন, প্যারামাউন্ট টেক্সটাইল, প্রগ্রেসিভ লাইফ, রূপালী লাইফ, ফার্স্ট সিকিউরিটি ব্যাংক, ইসলামিক ইন্স্যুরেন্স, ইউনিয়ন ক্যাপিটাল, ওইম্যাক্স, আমরা টেকনোলজিস, সালভো কেমিক্যাল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here