বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জ্ঞাতার্থে দু’টি কথা

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ধারাবাহিক প্রয়াসের অংশ হিশেবে 2018 সালের তেসরা জুলাই মুক্তিযোদ্ধাদের ঐতিহাসিক পদযাত্রা ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার বরাবর “মুক্তিযোদ্ধাদের সাংবিধানিক স্বীকৃতি ও ভুয়ামুক্ত মুক্তিযোদ্ধা তালিকা”র দাবি সম্বলিত যে স্মারকলিপি পেশ করা হয়েছিলো, তারই ফলশ্রুতিতেই আজ সারা দেশে মুক্তিযোদ্ধা যাচাই বাছাই কার্যক্রম চলছে । আমরা আশা করছি, মুক্তিযোদ্ধা তালিকা থেকে অমুক্তিযোদ্ধারা বিতাড়িত হওয়ার সাথে সাথেই বঙ্গবন্ধু-কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের সাংবিধানিক স্বীকৃতিসহ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের ঐতিহাসিক মর্যাদার আলোকে তাঁদের আর্থসামাজিক উন্নত জীবন ব্যবস্থা নিশ্চিত করবেন । নিজেদের জাতীয় ব্যক্তিত্বের আলোকে ধৈর্য্য ও সহনশীলতার সাথে তাই আমাদেরকে অপেক্ষা করতে হবে ।

সুতরাং রাজাকার ও ভুয়ামিশ্রিত কোনো মতলববাজ সংগঠন ও মহলের মায়াকান্নার হাতছানি ও হঠকারী আহ্বানে কোনো প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা বিভ্রান্ত হবেন না । আমার ব্যক্তিগত প্রয়াসসহ আমাদের সংগঠন ‘একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ’ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জাতীয় মর্যাদা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সার্বিক কল্যাণের বিষয়টি অত্যন্ত আন্তরিকতা ও বিশ্বস্তার সাথে মনিটরিং করছে ।

মুক্তিযোদ্ধাদের জাতীয় মর্যাদা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে অত্যন্ত সততা স্বচ্ছতা ও দেশপ্রেমের সাথে কার্যক্রমটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল এবং সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি ।

আবীর আহাদ
সভাপতি, একাত্তরের মুক্তিযোদ্ধা সংসদ


Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here