মিথ্যা মামলায় মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে হয়রানির অভিযোগ

কর্ণফুলী উপজেলার চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের চরফরিদ গ্রামে আবদুল্লাহ আল হারুন নামের এক মুক্তিযোদ্ধা পরিবারকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানির অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার (২ নভেম্বর) পটিয়া প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্য পাঠকালে তিনি জানান এলাকার মোঃ আইয়ুব নামের এক ব্যক্তি তার দায়েরকৃত মিথ্যা মামলায় হারুনের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র রায়হান ও এইচ.এস.সি. ১ম বর্ষের ছাত্র জিসানকে বয়স লুকিয়ে তাদেরসহ পরিবারের ৬ জনকে আসামী করা হয়।

অভিযোগে আরো বলেন গত ৩০ মার্চ হারুনের প্রতিবেশী আইয়ুব, ফোরকান, আকতার, লাভলু সহ ১০/১২ জন হারুনের ঘর ঘেরাও করে তার স্ত্রী পুত্রকে মারধর করে এবং ঘরে ভাংচুর ও লুটপাট চালায়। সন্ত্রাসীরা তাদের জিম্মি করলে তিনি কর্ণফুলী থানার পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে। এব্যাপারে হারুন বাদী হয়ে কর্ণফুলী থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। বিষয়টি নিয়ে এলাকার চেয়ারম্যান, মেম্বার ও গন্যমান্য ব্যক্তিরা স্থানীয়ভাবে সালিশ ডেকে ঘটনাটি সালিশী মিমাংসা করে দেন। এছাড়া উভয়পক্ষের সালিশকারগণ একটি রোয়েদাদ সম্পাদন করে দেন। কিন্তু সালিশে আইয়ুবকে ৩০ হাজার টাকা জরিমানা করায় তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে ঘটনার ছয় মাস পর গত ৮ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম চীফ মেট্টোপলিটন ম্যাজিষ্ট্রেট (৫ম) সরোয়ার জাহানের আদালতে একটি সি,আর মামলা দায়ের করে। যার নং ২৩৫/১৯। মামলাটি কর্ণফুলী থানায় আসার পর তদন্তকারী কর্মকর্তাকে প্রভাবিত করে তদন্ত ছাড়াই চার্জশীট আদায় করেন। বর্তমানে তার স্কুল পড়–য়া পুত্র ও অসহায় স্ত্রী এ মামলায় ফেঁসে গিয়ে হয়রানির শিকার হচ্ছে।

আবদুল্লাহ আল হারুন আক্ষেপ করে বলেন ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় পাক হানাদার বাহিনীর হাতে তার পিতা মুক্তিযোদ্ধা ইব্রাহিম সওদাগর নির্যাতিত হন এবং তাদের বাড়ী ঘর হানাদার বাহিনী জ্বালিয়ে দিয়ে দোকানপাট লুট করে তার পিতাকে নিঃস্ব করে দেয়। বর্তমানে তার প্রতিবেশী সন্ত্রাসীরাও তাদের বাড়ী-ঘর ভাংচুর, লুটপাট করে তাদের উল্টো মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে হয়রানি করছে। তিনি এব্যাপারে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয় সহ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here