মুক্তিযোদ্ধাকে খুন করল স্ত্রী-পুত্র! এ ঘটনা মিথ্যা দাবী মেয়ের,কালাশাহের লোকজন হত্যা করেছে

মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ওয়াদুদ ফ্রিডম পার্টির নেতা
সুনামগঞ্জের দোয়ারাবাজারের পল্লীতে দিন-দুপুরে শাবলের আঘাতে খুন হয়েছেন মুক্তিযোদ্ধা আবদুল বারেক (৭২)।

রোববার দুপুর ২টার দিকে উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নের সুলতানপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের স্ত্রী আফিয়া বেগম (৫৫) ও ছেলে মিলন মিয়াকে (৩০) প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করে থানায় নিয়ে আসে পুলিশ।

নিহত মুক্তিযোদ্ধা আবদুল বারেক ওই গ্রামের মৃত মুসলিম উদ্দিনের পুত্র।

খুনের ঘটনার বিষয়ে স্থানীয়দের কাছ থেকে দ্বিমুখি গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। কেউ কেউ বলছে পারিবারিক কলহের জের ধরে আটক স্ত্রী-পুত্রের হাতে তিনি খুন হন। আবার কেউ কেউ বলছে প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে পরিকল্পিতভাবে তাকে খুন করা হয়েছে।

খবর পেয়ে ওইদিন বিকালে সুনামগঞ্জের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

জানতে চাইলে দোয়ারাবাজার থানার ওসি আবুল হাশেম বলেন, ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ঘটনাস্থল থেকে দেশীয় শাবল উদ্ধার করে তিনি বলেন, নিহতের স্ত্রী আফিয়া বেগম ও ছেলে মিলনকে আটক করে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে সুরতহাল রিপোর্টে নিহতের মাথায় শাবলের আঘাতের চিহ্ন পাওয়া গেছে। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

খুনের ঘটনায় নিহতের অপর ছেলে মাসুক মিয়া বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে ওসি জানান।

নিহতের মেয়ে মমতাজ বেগমের অভিযোগ, তাদের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে এলাকার কালাশাহের পরিবারের বিরোধ ছিল। একটি খুনের ঘটনায় তার বাবা, ভাই আসামি হয়ে জেলও খাটেন।

তিনি বলেন, “পরিকল্পিতভাবে আমার বাবাকে কালাশাহের লোকজন হত্যা করেছে শাবল দিয়ে। পুলিশ তাদের না ধরে আমার মা ও ভাইকে ধরে নিয়ে গেছে। আমরা এ ঘটনার সঠিক বিচার চাই।”

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here