১১ দফা দাবি পূরন না হওয়া পর্যন্ত কোন ধরনের প্রতিযোগীতা মূলক ম্যাচে অংশগ্রহণ করবে না ক্রিকেটাররা

১১ দফা দাবি পূরন না হওয়া পর্যন্ত কোন ধরনের প্রতিযোগীতা মূলক ম্যাচে অংশগ্রহণ করবে না জাতীয় দল ও অন্যান্য ক্রিকেটাররা। আজ বিকালে মিরপুর শেরে-বাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলন করে ক্রিকেটাররা বেশ কিছু দাবি জানিয়েছেন।এই দাবি নিয়ে এই আন্দোলনে উপস্থিত হয়েছেন সাকিব, তামিম, মুশফিক, মাহমুদউল্লাহসহ দেশের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটাররা

চলুন একনজড়ে দেখে নেওয়া যাক তাদের ১১ দফা দাবিঃ

১। ক্রিকেটার্স ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(কোয়াব) এর দায়িত্ব থাকা সভাপতি সাধারন সম্পাদক কে পদত্যাগ করতে হবে।

ক্রিকেটাররা নির্ধারণ করবেন কোয়াবের কোন পদে কে থাকবে আর কোন পদের দায়িত্ব কাদের কাঁধে থাকবে।

২। আগের ফরম্যাটে প্রিমিয়ার লিগ আয়োজন করতে হবে। ক্রিকেটাররা নিজেরাই সিদ্ধান্ত নেবেন কোন ক্লাবে খেলবেন এবং প্রতিটা দলের সঙ্গে তারা নিজেরাই পারিশ্রমিক ঠিক করবেন

৩।জাতীয় দলের চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়াতে হবে। বিশ্বের অন্যান্য ক্রিকেট খেলুড়ে দলের তুলনায় বাংলাদেশে অনেক কম উল্লেখ করে চুক্তিবদ্ধ ক্রিকেটারের সংখ্যা ৩০ করার দাবি রাখা হয় তিন বছর ধরে বেতন বাড়ানো হয়না উল্লেখ করে বেতন বাড়ানোর দাবি জানানো হয়।

৪। আগের ফরম্যাটে বিপিএল করতে হবে।
দেশী ক্রিকেটারদের পারিশ্রমিক বাড়াতে হবে বিদেশী ক্রিকেটারদের মানদণ্ড বিবেচনায় এনে।
বিশ্বের অন্যান্য ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগে প্লেয়াররা নিজে নিজের ক্যাটাগরি নির্ধারণ করতে পারে। বিপিএলেও তেমন করতে হবে।

৫। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ম্য্যাচ ফি ১ লাখ টাকা করতে হবে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটারদের বেতন ৫০ শতাংশ বাড়াতে হবে। ১২ মাস কোচ, ট্রেইনার ইত্যাদি নিশ্চিত করতে হবে। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে মানসম্মত বল দিতে হবে।

৬। ডেইলি অ্যালাওয়েন্স ১৫০০ টাকাতে সন্তুষ্ট নয় ক্রিকেটাররা। সেটা বাড়াতে হবে। ক্রিকেটারদের যাতায়তের ক্ষেত্রে প্লেন ফেয়ার দাবি করা হয়েছে। হোটেলে জিম ও সুইমিংপুল নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে। ক্রিকেটাররা যে বাসে যায় সেটা ভালো মানের করার দাবি।

৭। ক্রিকেটারদের সম্মানই শুধু নয়, ক্রিকেট সংশ্লিষ্ট সবার সম্মান দিতে হবে। সারাদিন কাজ করে যাওয়া গ্রাউন্ডসম্যানরা মাস শেষে ৫০০০ এর মতো টাকা পায় উল্লেখ করে বলা হয় তাঁদের মজুরি বাড়াতে হবে। দাবিতে আরো বলা হয়, স্থানীয় কোচদের সম্মানী বাড়াতে হবে। আম্পায়ারদের বিরুদ্ধে অনেক সমালোচনা হয় উল্লেখ করে বলা হয় তাদের জীবিকা নির্বাহের জন্য যথাযথ সম্মানী দিতে হবে। ফিজিও, ট্রেইনারদের ক্ষেত্রেও একই দাবি। সব ক্ষেত্রেই বাংলাদেশিদের মূল্যায়ন করার কথা আসে এই দাবিতে।

৮। ঘরোয়া লিগে বাংলাদেশে দুইটি লঙ্গার ফর্মেটের পুর্নামেন্ট হয় বিসিএল ও এনসিএল।
সেক্ষেত্রে ৫০ ওভারের ফরম্যাটে খেলা হয় একটি টুর্নামেন্ট- ডিপিএল। ক্রিকেটারদের পক্ষ হতে সেখানে আরেকটা টুর্নামেন্ট বাড়ানোর দাবি জানানো হয়।
এছকড়াও বিপিএলের আগে আরো একটা স্থানীয় টি-টোয়ন্টি লিগ করারও দাবি জানানো

৯। ঘরোয়া টুর্নামেন্টের জন্য একটা ফিক্সড ক্যালেন্ডার থাকতে হবে। আগে থেকে প্রস্তুত হবার জন্য এটি অতি জরুরি।

১০। প্রিমিয়ার লিগের যে বকেয়া টাকা তা সময়মতো যেনো পরিশোধ করতে হবে । এর আগে ব্রাদার্স ইউনিয়নের ক্রিকেটাররা এখনও ৪০ শতাংশ টাকা পাননি এমনকি
বোর্ডে অনেক বার যেয়ে, কোয়াবকে নক করেও সুফল পায়নি ক্রিকেটাররা।

১১। ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ খেলতে যে মাত্র দুইটি লিগে খেলার বিধান তা শিথিল করা হোক। ন্যাশনাল ডিউটি পালন করার বাইরে ফাকা সময়ে যেনো তাঁরা খেলতে পারেন এই দাবি ক্রিকেটারদের পক্ষে জানানো হয়।

সবশেষে সাকিব বলেন, ‘আমাদের উত্থাপিত দাবিগুলো যত দিন না পূরণ করা হচ্ছে, তত দিন কোনো ক্রিকেটীয় কার্যক্রমে অংশ নেবেন না ক্রিকেটাররা।

তবে বয়সভিত্তিক দলগুলো এই ধর্মঘটের আওতাভুক্ত নয় আর সাকিব এটিও জানান যে নারী ক্রিকেটাররাও এতে অংশগ্রহণ করতে পারেন যদি তাদেরও কোন দাবি থাকে সেটিও জানানো হবে।

আর যদি এই দাবিগুলো মানা না হয় তবে ঘরোয়া লিগের ৩য় রাউন্ডে মাঠে নামবে না একটি ক্রিকেটারও এমনকি পন্ড হতে পারে ভারত সফর ও,,,

খুব দ্রুতই কোন একটা সিদ্ধান্তে আসতে হবে বিসিবি কে কারন ভারত সফরের আগে হাতে সময়ও খুব বেশি নেই ১০-১১ দিন পরেই সিরিজ শুরু হবে সেক্ষেত্রে খুব দ্রুতই পাপন কে কোন একটা সিদ্ধান্তে আসতে হবে।

এছাড়াও ক্রিকেটারদের দাবিগুলো সবকয়টিই যৌক্তিক মনে হয়েছে অন্তত আমার চোখে বিশ্বের চতুর্থ ধনী একটি ক্রিকেট বোর্ডের লিগের পারিশ্রমিক কেনো মাত্র ৩৫ হাজার টাকা হবে???

যেখানে ভারতে রন্জি ট্রফিতে প্রতিটা খেলোয়াড় ম্যাচ ফি পায় দেড় লক্ষ টাকা সে তুলনায় অতি নগন্য বিসিবির এই পারিশ্রমিক।

উপরোক্ত দাবিগুলো মিডিয়ার সামনে উত্থাপন করেন নাইম ইসলাম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, এনামুল হক জুনিয়র, তামিম ইকবাল, এনামুল হক বিজয়, নুরুল হাসান সোহান, জুনায়েদ সিদ্দিকী এবং ফরহাদ রেজা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here