৩৬ বছরের “তরুণ” জেমস “জিমি” এন্ডারসন!

Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

 

বিশেষ প্রতিনিধি- হাসনাইন মোঃ আকিফঃ এন্ডারসনকে টপকানো কি সম্ভব?

ভারতের মোহাম্মদ সামির উইকেট উপড়ে ফেলেই জেমস এন্ডারসন টেস্ট ইতিহাসের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার হয়ে গিয়েছেন।ম্যাকগ্রার ৫৬৩ উইকেট এখন অতীত ইতিহাস। ৫৬৪ উইকেট নেয়া জিমি এন্ডারসন ঠিক কোথায় থামবেন সেটাও অজানা রহস্য!৩৬ বছরের জিমি নিজেকে ৩২ বছরের মতো ফিট দাবি করেছেন এই সিরিজ শুরুর আগে। আর ইংল্যান্ড কোচ মনে করেন ৪০ বছর পর্যন্ত নিশ্চিত খেলতে পারবেন জিমি।

১৫ বছর ধরে টানা খেলে যাচ্ছেন, অথচ মাঠের খেলায় বয়সের কোন ছাপ নেই! দূর্দান্ত ফিটনেস। লাগামহীন বলগা হরিণের মতো ছুটে বেড়াচ্ছেন লর্ডস থেকে মিরপুর, ওভাল থেকে মেলবোর্ন।

জিমি কোথায় থামবেন সেটা নিশ্চিত বলা না গেলেও বর্তমান সময়ের যেকোন পেসারের পক্ষে জিমির রেকর্ড টপকানো প্রায় অসম্ভব বলেই মনে করছেন গ্লেন ম্যাকগ্রা।বর্তমানে তিন ফরম্যাট এবং ফ্র‍্যাঞ্চাইজী লীগ মিলিয়ে একজন পেসার যেই পরিমাণ ক্রিকেট খেলে থাকেন তাতে করে ৩৬ বছর পর্যন্ত টেস্ট ক্রিকেটে ফর্ম ধরে রাখা অসম্ভব বলাই যায়। পাশাপাশি আইসিসির ফিউচার ট্যুর প্রোগ্রাম গুলোতে কমেছে টেস্টের সংখ্যা।

জিমি বর্তমানে একটাই ফরম্যাট খেলে থাকেন, ফ্র‍্যাঞ্চাইজী লীগে অংশ নেন না। এমনকি কাউন্টি ম্যাচও হিসাব করে খেলেন, বোর্ড থেকে জানিয়ে দেয়া হয় ক্লাব তাকে কিভাবে আর কয় ম্যাচের জন্য ব্যবহার করতে পারবে। এইসবের সুফল জিমি পাচ্ছেন, ইংল্যান্ড পাচ্ছেন।সময়ের সাথে যেন আরো শানিত হচ্ছেন জিমি, যেকোন তরুণ পেসারের চেয়ে কোন অংশে কম নন তিনি। এখনো দূর্দান্ত সুইং-এর ভেলকিতে বোকা বানান ব্যাটসম্যানদের। অফকাটারে স্ট্যাম্প এলোমেলো করে দেন।

ক্যারিয়ের প্রথম উইকেট নিয়েছিলেন ২০০৩ সালে, অভিষেক টেস্টে মাত্র ১৮ বল লেগেছিলো লর্ডসে জিম্বাবুয়ের মার্ক ভারমিউলেনের মিডিল স্ট্যাম্প উপড়ে দিতে, একটা পারফেক্ট অফ-কাটার!পরের ৯৯ উইকেট নিতে কিছুটা সময় লেগেছে। ওভালে ২০০৮ সালে জ্যাক ক্যালিসকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলে তুলে নিয়েছিলেন ১০০-তম টেস্ট উইকেট।

২০০-তম উইকেট এসেছিলো পার্থে ২০১১ সালে। পিটার সিডলকে ট্রেডমার্ক আউটসুইঙ্গারে ড্রেসিংরুমে ফেরত পাঠিয়েছিলেন।২০১৩ সালে লর্ডসে নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যান পিটার ফুলটনকে আরেকটি দূর্দান্ত আউটসুইঙ্গারে স্লিপে ক্যাচ বানিয়ে এসেছিলো ৩০০-তম টেস্ট উইকেট। সেটা ছিলো আরেকটা ফাইফার। চতুর্থ বারের মতো অনার্স বোর্ডে নাম তোলা!

৩৮৪-তম উইকেট, এন্টিগা ২০১৪, স্যার ইয়ান বোথামের ইংল্যান্ড রেকর্ড ভেঙে দিয়েছিলেন চমৎকার একটি লেগ কাটারে যখন ক্যারিবিয়ান অধিনায়ক দীনেশ রামদিন স্লিপে ক্যাচ দিয়ে আউট হন। তিন দশক ধরে যেই রেকর্ড ধরে ছিলেন স্যার বোথাম সেই ইংলিশ ক্রিকেটারের সর্বোচ্চ টেস্ট উইকেটের রেকর্ড ভেঙে দিলেন জিমি। স্যার বোথাম মাঠেই ছিলেন, অভিনন্দন জানালেন জিমিকে।

উইকেট নাম্বার ৪০০, হেডিংলি ২০১৫, অফ স্ট্যাম্পের বাইরের বলটা শেষ মুহূর্তে মার্টিন গাপটিলের ব্যাটে লেগে স্লিপে ইয়ান বেলের হাতে জমা পড়েছিলো!৫০০-তম উইকেট, লর্ডস ২০১৭, বিশাল ইনসুইঙ্গারে ক্যারিবিয়ান ব্যাটসম্যান ক্রেগ ব্রাথওয়েটের স্ট্যাম্প উপড়ে দিলেন। এই দিনেই ক্যারিয়ার সেরা ৪২ রানে ৭ উইকেট তুলে নিয়েছিলেন।

এবং ৫৬৪-তম উইকেট, ওভাল ২০১৮, ১২ বছর আগে সিডনিতে লিজেন্ডারি ক্রিকেটার গ্লেন ম্যাকগ্রা ক্যারিয়ার শেষ করেছিলেন ৫৬৩ উইকেট নিয়ে। গ্লেন ম্যাকগ্রার ৫৬৩-তম উইকেট ছিলেন জিমি এন্ডারসন নিজেই!!১২ বছর পর ভারতের মোহাম্মদ সামিকে ক্লিন বোল্ড করে টেস্ট ক্রিকেটের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি পেসার হয়ে গেলেন জিমি এন্ডারসন। এলিস্টার কুকের ম্যাচে শেষ আলোটা কিছুটা নিজের দিকে কেড়ে নিলেন জিমি।

৫৬৪ উইকেট নেয়ার পরেও কেউ জানেনা কোথায় থামবেন ৩৬ বছরের “তরুণ” জেমস “জিমি” এন্ডারসন!


Share It
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here